পক্ষ তিনটি কিন্তু বাস্তবতা এক

শনিবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭ ৮:৩৭ PM | বিভাগ : দেশ/রাজনীতি


কুরআনের ভাস্কর্য আইনমন্ত্রীকে দিয়ে উদ্বোধন করাটা চিত্তাকর্ষক। তিনি ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার সাংসদ বলেই ভাস্কর্যটি উদ্বোধন করছেন ঠিকই, তবে ‘কুরআনের আইন চাই’- এমন দাবীদাররা কুরআনের ভাস্কর্য প্রতিষ্ঠাকে একটি মাইলফলক ধরলে সেটি একজন আইনমন্ত্রীকে দিয়েই তারা উদ্বোধন করালো!

বাংলাদেশের ঐ শ্রেণিটি যারা ভারতে হিন্দুত্ববাদ, ইউরোপের ইসলামফোবিয়া, সাম্রাজ্যবাদীদের মুসলিম বিশ্বে লুন্ঠনকারী বলে গলার রগ ফোলায়, সেই সোসাইটি কুরআনের ভাস্কর্য নির্মাণকে সাম্প্রদায়িক হিসেবে দেখে না। ‘মুসলিম বিশ্ব’ কথাটাতেও কোনো সাম্প্রদায়িকতা দেখতে পায় না। কিন্তু ৯০ ভাগ মুসলমানের উচ্ছেদ নির্মূলের প্রতিবাদ প্রতিরোধ করতে ‘হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ’ গঠন করা তাদের কাছে সাম্প্রদায়িকতা। ওআইসিতে কোনো সাম্প্রদায়িকতা নেই সব সাম্প্রদায়িকতা বঙ্কিমচন্দ্রে!

শরীয়া শাসনে কিছু যায় আসে না সব ক্ষোভ জায়েনবাদে। এদেরকে আপনি কখনই সৌদি আরবে শরীয়ার বিরোধীতা করতে দেখবেন না। তাদের কাছে ট্রাম্প, বাল থ্যাকারই কেবল সাম্প্রদায়িক বর্ণবাদী…।

এরাই কিন্তু জাস্টিসিয়া ভাস্কর্য ভাঙ্গতে ইন্দন জুগিয়েছিলো। ইসলামপন্থীরা জাস্টিসিয়া ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলতে স্টেটকাট কথা বলেছিলো। ইসলামে ভাস্কর্য হারাম, মুসলমানের দেশে একে একে কোনো ভাস্কর্য-মূর্তিই রাখা হবে না- ব্যস। কিন্তু ঐ শ্রেণিটি অন্য পথ ধরেছিলো। তারা ইসলামপন্থীদের আপত্তির পর অন্য পথ ধরলো। তারা বলতে শুরু করলো, জাস্টিসিয়া গ্রীক দেবীর আদলে গড়া বিধায় এটি আমাদের সংস্কৃতির আওতায় পড়ে না। তাছাড়া জাস্টিসিয়াকে শাড়ি পরিয়ে কিম্ভুতাকার করা হয়েছে… ইত্যাদি।

এরা বাংলাদেশে নানা উপ-পরিচয়ে বিভক্ত। আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী, কমিউনিস্ট ইত্যাদি রাজনৈতিক মোড়কে। তারা বাংলাদেশে একটি পক্ষ। তাদের নিয়ে বাংলাদেশে প্রায় তিনটি পক্ষ আছে মূলত। এক- পিউর ইসলামপন্থী, দুই- বাঙালী মুসলমান, তিন- মুসলমান বাঙালী। মুসলমান বাঙালীরাই মুসলমানদের জন্য পৃথক রাষ্ট্র পাকিস্তান গঠন করেছিলো। কিন্তু তারপরও তারা ‘ইসলামপন্থী’ নয় কারণ তারা ইসলামী শাসন বা কুরআনের আইন চান নি পাকিস্তানে। তারা মুসলমান এই পরিচয়ে হিন্দুদের উপর স্বাতন্ত্রতা প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছেন। তারা বাংলা ভাষাতে প্রচুর আরবি-ফারসি শব্দের আমদানী করে মূল বাংলা ভাষা থেকে ভিন্নতর ‘মুসলমানি বাংলা ভাষা’ তৈরি করতে চেয়েছেন। এই অভিন্ন অবস্থানে আস্থাশীল থেকেই মুসলমান বাঙালিদের একাংশ ষাটের দশকে ‘বাঙালী মুসলমান’ হয়েছিলেন। এর রূপান্তর কেবলই রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন, চাকরিবাকরি মায় অর্থনৈতিক কারণে। জাতিগত বৈষম্যের কারণে পাকিস্তান ভেঙ্গে যাবার উপক্রম হলে ‘মুসলমান বাঙালি’ পক্ষ আর ইসলামপন্থীরা পাকিস্তান রক্ষায় ষাটের দশকের এই পক্ষটিকে ভারতের দালাল, নাস্তিক সোভিয়েত-ভারতের চর, ইসলাম বিরোধী শক্তি হিসেবে প্রচার করে যা আদতে ছিলো মিথ্যাচার। হিন্দুসহ অমুসলিম নাগরিকদের প্রশ্নে কার্যত এই অংশটি অপর অংশগুলো মতোই ছিলো উদাসীন। পাকিস্তান সৃষ্টির মাধ্যমে বাঙালি হিন্দুদের পূর্ববঙ্গে মধ্যবিত্ত শ্রেণির শক্তি খর্ব হয়ে মিলিয়ে যেতে থাকে যাতে এই পক্ষটিও নিরব থেকে সমর্থন জুগিয়ে গিয়েছিলো…।

এই ‘বাঙালি মুসলমানই’ জয়ী হয়ে পরবর্তীকালে বাংলাদেশ গঠন করে। আজো তিনটি পক্ষ জাগ্রত এক বাস্তবতা। তাদের মধ্যে মত পার্থক্য থাকলেও নিউক্লিয়াস একই হওয়াতে আজকে বাংলাদেশে কুরআনের ভাস্কর্য নির্মাণ তাদের কালে অনভিপ্রেত কিছু নয়।


  • ২১৫৯ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

সুষুপ্ত পাঠক

বাংলা অন্তর্জালে পরিচিত "সুষুপ্ত পাঠক" একজন সমাজ সচেতন অনলাইন একটিভিস্ট ও ব্লগার।

ফেসবুকে আমরা