স্বাধীনতার প্রতীক বিজয়ফুল

বুধবার, নভেম্বর ২৯, ২০১৭ ৫:৫৯ PM | বিভাগ : দেশ/রাজনীতি


'বিজয়ফুল' আমাদের মুক্তিযুদ্ধ বিজয়ের প্রতীক। নব্বই দশকে কবি শামীম আজাদ বিলেতে থেকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ জয়ের প্রতীক নিয়ে ব্যাপক লেখালেখি ও ক্যাম্পেইন শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় 'বিজয়ফুল' সৃষ্টি। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রতি ডিসেম্বরের ১ থেকে ১৬ তারিখ বাংলাদেশীরা এ ফুল পরে আসছেন। বিজয়ফুল এখন সকলের। বহির্বিশ্বে বসবাসরত বাংলাদেশিদের কাছে বিজয়ফুল হয়ে উঠেছে মুক্তিযুদ্ধের একটি অনন্য স্মারক।

বিশ্বব্যপী বিজয়ফুল কর্মসূচিঃ

১। ডিসেম্বরের এক থেকে ষোল তারিখ প্রতিদিন এ ফুল পরে থাকার মাধ্যমে ৭১ এর শহীদদের কথা স্মরণ করা।
২। আগামী প্রজন্মের সঙ্গে কাগজে সম মাপের ৬টি গোলকে সবুজ পাঁচ পাপড়ি ও একটি লাল গোলকের সম্মিলনে ফুল তৈরি করা। শিক্ষামূলক এই সেশনে আমাদের ন্যূনতম পাঁচ অধিকার, পাঁচ বড় নদী, নানান ধর্মের মানুষ ইত্যাদি ও বাংলাদেশের সবুজ প্রকৃতি ও তারমাঝে ডিসেম্বরের লাল রক্তের সূর্য এ নিয়ে শিক্ষকগনের কথা বলা।
৩। ফুল তৈরি করা চলার সময় একজন মুক্তিযোদ্ধা/ কবি/ সাহিত্যিক/ শিল্পীর দ্বারা মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের গল্প বলা।

উল্লেখ্য এ ফুল ফ্রি। কেন্দ্রীয় বিজয়ফুল কমিটি ই এক মাত্র বিলি বন্টনকারী। তবে আপনি ইন্টারনেট থেকে প্রিন্ট বের করে উল্লিখিত কার্যক্রম পালন করতে পারেন।


  • ১৭৮১ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

শামীম আজাদ

কবি, লেখক।

ফেসবুকে আমরা