পুরুষতান্ত্রিকতাও এক ধরনের সাম্প্রদায়িকতা

রবিবার, অক্টোবর ২৯, ২০১৭ ৮:৩০ PM | বিভাগ : আলোচিত


বহুদিন আগে মিশরের নোবেল লরিয়েট আরবি কনটেম্পরারি কথাসাহিত্যিক নাগিব মাহফুজের একটা বড়সড় সাক্ষাৎকার পড়েছিলাম কাগজে। সাক্ষাৎকার প্রার্থীর কাছে তিনি প্রথমেই জানতে চেয়েছিলেন, তসলিমা নাসরিন কেমন আছেন? পরে সাক্ষাৎকার গ্রহীতা এক পর্যায়ে নাগিব মাহফুজের কাছে জানতে চান, আপনি শুরুতেই তসলিমা নাসরিনের কথা জানতে চাইলেন কেনো? নাগিব মাহফুজ বলেছিলেন, একটা সমাজে বা দেশে নারীর অবস্থা সমন্ধে জানতে পারলে ঐ সমাজ বা দেশের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে সহজেই ধারণা পাওয়া যায়।


সমাজে নারীর অবস্থা যে শুধু একটা দেশের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা দেয় তা নয়, এটা ঐ সমাজের পুরুষের মানসিকতাকেও প্রকাশ করে।

একটা সমাজে নারীর অবস্থা কীভাবে নির্মিত হয়? পুরুষতান্ত্রিক বিশ্বব্যবস্থায় একটা সমাজে নারীর অবস্থা নির্মাণ হতে পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গির উপর অনেকাংশে নির্ভর করে, মন্দ অবস্থা, কি ভালো দু'টোই। সেটা কেমন? যেমন বাবা হিসেবে আপনার মেয়েকে আপনি পড়াশুনা, নাচ গান ইত্যাদি শিখিয়ে সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী স্বাধীন ভবিষ্যৎ নির্মাণে সহায়তা করবেন, অথবা ঘরকন্নার কাজ শিখিয়ে বিয়ে থা দিয়ে পরনির্ভর ভবিষ্যৎ বানিয়ে দিবেন।

আবার ধরুন, একটা সমাজে পুরুষ নারীকে কীভাবে দেখে, নারীর সাথে কেমন আচরণ করে, নারীকে কীভাবে সম্বোধন করে, বা কতটুকু সম্মান করে এগুলিও নারীর সামাজিক অবস্থা তৈরিতে ভূমিকা রাখে। আমাদের সমাজে পুরুষ নারীকে কীভাবে দেখে? নারীর সাথে কেমন আচরণ করে? নারীকে কীভাবে সম্বোধন করে? উত্তরগুলি আমাদের জন্য সুখকর নয়।

নারীকে সম্মান করা শিখতে হয়। আপনার সমাজ যদি পশ্চাদপদ হয় তবে উন্নত সমাজ ব্যবস্থার অনুকরণে শিক্ষা নেওয়া যেতে পারে। দুঃখের বিষয় আমাদের তথাকথিত শিক্ষিতদের মাঝে নারীকে সম্মান করার শিক্ষাটা যথাযথ নেই। তাই নারীর প্রতি পুরুষদের একটা নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী কাজ করে। পুরুষ তাদের সাথে যা তা আচরণ করে, যা তা সম্বোধন করে এবং কর্তৃত্ব করে নিজেদেরকে বীর বানিয়ে পুরুষতন্ত্রকে সংহত রাখে।

এই সংহত রাখা, এটা একটা সাম্প্রদায়িক আচরণ। আসলে পুরুষতান্ত্রিকতাও এক ধরনের সাম্প্রদায়িকতা। এটা নারী ও পুরুষকে আলাদা সম্প্রদায় ভাবতে শেখায় এবং পুরুষ নিজেদের শ্রেষ্ঠতর ভাবে আর নারীকে ভাবে নিকৃষ্টতর। এবং এই পুরুষতান্ত্রিক সাম্প্রদায়িক শিক্ষা (পড়ুন অশিক্ষা বা কুশিক্ষা) জন্ম দেয় অন্যান্য সাম্প্রদায়িক আচরণ। তখন তারা নিজেদের মধ্যে বিভাজন স্পষ্ট করে এবং নিজ সম্প্রদায়কে মহান ভাবে আর তারা নারীর প্রতি যেমন অপমানজনক আচরণ করে, অশালীন সম্বোধন করে, নিজ সম্প্রদায়ের বাইরের লোকদের প্রতিও একই আচরণ করে। এর একমাত্র কারণ অশিক্ষা কুশিক্ষা। এসব মনোভাবাপন্ন লোকেরা কখনো সুশিক্ষার সন্ধান পায় না।


  • ৪৬০ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

নির্তেশ সি দত্ত

প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশুনা শেষ করে যুক্ত হন সাংবাদিকতায়, কয়েক বছর কাজ করেছেন দেশের প্রথম সারির দৈনিক ‘নিউিএজ’ পত্রিকায়। জাতীয় পর্যায়ের মানবাধিকার সংগঠন ‘অধিকার’ এ ‘হিউম্যান রাইটস এক্টিভিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন। বর্তমানে প্রামান্য চলচ্চিত্র নির্মাণে নিয়োজিত আছেন।

ফেসবুকে আমরা