এরা কারাবাসী? না কি বনবাসী?

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৭ ৩:১৪ AM | বিভাগ : প্রতিক্রিয়া


বাংলা রূপকথা বা লোক কাহিনীগুলোতে বনবাস একটি খুবই সাধারণ শাস্তি। যে কোনো গল্পের প্রধান চরিত্রগুলোর কাউকে না কাউকে বনবাসে পাঠানো হয়েছে শাস্তি স্বরূপ। যেমন "কমলার বনবাস" "সাত ভাই চম্পা" গল্পে ছোট রাণীর বনবাস, "রহিম বাদশা" গল্পে রূপবানের বনবাস আরও আছে কিন্তু এখন মনে পড়ছে না।

সভ্য সমাজে এখন আসলে বনবাস দেওয়া সম্ভব না। বাংলাদেশে তো আরও সম্ভব না কারণ, বনবাস দেওয়ার মতো যোগ্য বন বাংলাদেশে নেই বলেই আমার ধারণা। বনবাস বা নির্বাসন বা কারাভোগ আমার আছে ভয়ানক শাস্তি মনে হয়। এই শাস্তি শারীরিকভাবে যতটা কষ্টের তার থেকে মানসিক কষ্টের কারণ হয় বেশী। বনেবাস করার মানে তো নিঃসঙ্গতা। গাছের সাথে, পশু পাখির সাথে তো আর মনের ভাব প্রকাশ করা যায় না। আমি নিঃসঙ্গতাকে দারুণভাবে ভয় পাই।

বর্তমান সভ্য সমাজে কারাগার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। যদিও আমাদের দেশের চিত্র ভিন্ন। আমাদের দেশে বিভিন্ন অপরাধের শাস্তি বিভিন্ন মেয়াদের কারাভোগের মাধ্যমে দেওয়া হয়। যদিও খুনের অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিরাও অনেক সময় বেকসুর খালাস পায় আবার বিনা দোষে কারাভোগের ইতিহাসও বিস্তর আছে আমাদের দেশে।

বনবাস আর কারাবাস দুইটা নিয়েই গভীর চিন্তায় আছি আমি। টিটু রায়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঐ যে রংপুরের সাম্প্রদায়িক হামলায় যে টিটু রায়ের বাড়ীঘরে আগুন দেওয়া হল। যার প্রতিবেশীদের বাড়ী থেকে গরু নিয়ে গেল, লুটপাট হলো। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে টিটু রায় নির্দোষ বলে প্রমাণিত হয়েছে। এর আগে রসরাজ দাসও নির্দোষ হবার পরও তিন মাস কারাভোগ করতে হয়েছে। এখনও রসরাজই আসামী। প্রতিমাসে রসরাজকে হাজিরা দিতে হয়। নাসিরনগরের সাম্প্রদায়িক হামলার এক বছর পূর্তিতে রসরাজের হাজিরা দেওয়াটা শিরোনামে ছিলো।

না জানি গার্মেন্টস কর্মী টিটু রায়কে কতদিন কারা ভোগ করতে হবে? দেনার দায়ে বাড়ীঘর ছাড়া টিটুর সংসার এই কয়দিনে কিভাবে চলবে কে জানে? টিটু রায় ফিরে এসে তো আর এই কাজটা ফেরত পাবে না। কি হবে তবে? তবে কি টিটুর পরিবারের দেনা আরও বাড়বে?

এতো বনবাসের মধ্যে আমার রামচন্দ্রের বনবাসও মনে পড়ছে। হিন্দুদের ধর্মগ্রন্থ "রামায়ণের" অন্তর্গত "রামচন্দ্রের বনবাস"। শ্রীরামচন্দ্র স্ত্রী সীতা ও ভাই লক্ষণকে নিয়ে ১৪ বছরের জন্য বনে যাওয়ার সময় তার সঙ্গে এক দলা মাটি নিয়ে গিয়েছিলেন অযোধ্যার। মাতৃজ্ঞানে রোজ পুজা করতেন সেই মাটির দলার। বনবাস চলাকালীন যখন রামচন্দ্র লঙ্কা জয় করেন তখন ছোট ভাই লক্ষণ শ্রীরামচন্দ্রকে পরামর্শ দেন স্বর্ণ ও রত্নে শোভিত লঙ্কার রাজা হয়ে লঙ্কায় রাজত্ব করতে। কিন্তু রামচন্দ্র রাজী হলেন না। তিনি সীতা ও লক্ষণকে নিয়ে দ্রুত অয্যোধায় ফিরতে চাইলেন আর লক্ষণকে বললেন "জননী, জন্মভূমি স্বর্গাদ্বপি গরিয়সী"।

আচ্ছা আমি যদি টিটু রায়ের উঠানের এক দলা মাটি নিয়ে টিটু রায়কে কারাগারে দিয়ে আসি তাহলে টিটু রায়ও কি রোজ ঐ মাটির দলার পুজা করবে? টিটু রায়ও কি বলবে "জননী, জন্মভূমি স্বর্গাদ্বপি গরিয়সী"? টিটু রায়ও কি বলবে বাংলাদেশ স্বর্গের থেকেও ভালো।

আচ্ছা, টিটু রায়দের বনবাস কিংবা আজীবন কারাবাস শেষ হবে কবে?


  • ১০৯৫ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

মৌসুমী চৌধুরী

লেখক মৌসুমী এখনও একজন পুরাদস্তুর ছাত্র।

ফেসবুকে আমরা