সকলেই জলের ভেতরে ঘুমিয়েছি, মাতৃগর্ভে

শুক্রবার, মার্চ ৮, ২০১৯ ৫:১৮ PM | বিভাগ : সাম্প্রতিক


একদা আমার এক নারীবন্ধু তাঁর অদ্ভুত ও অযৌক্তিক স্বপ্নের ব্যাখ্যা জানতে চাইলেন। স্বপ্নটা তিনি দেখছেন পর পর কয়েক রাত। স্বপ্নটা হচ্ছে, তিনি একটি পুকুরে জলের মাঝে নিশ্চিন্তে ও আরামে ঘুমুচ্ছেন। ঘুম থেকে জেগে উঠে তিনি কিছুটা বিমুঢ় ও দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হলেনঃ "মানুষ কিভাবে জলের ভেতরে ঘুমাবে? পাগল হয়ে যাচ্ছি না তো?"

কর্মজীবী এই নারী বন্ধুর সামাজিক প্রেক্ষিত আমার জানা। তিনি সিঙ্গেল মাদার, এক কিশোরী কন্যার। কাজ করেন এমন এক আমলাতান্ত্রিক আবহে যে কাজের চাপের বাইরে রয়েছে "দুর্নীতি দর্শনের" চাপ, আক্ষরিক অর্থেই। আপনি সৎ মানুষ, কিন্তু চারপাশে ধান্দাবাজ লোক, অনেক দিন ধরে এরকম পরিবেশ মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকির। বাসায়, বয়ঃসন্ধি কালের মেয়ে সন্তানকে মানুষ করাও কম দুশ্চিন্তার নয়, আমাদের প্রতিশোধকামী পৌরুষের বাংলাদেশে।

স্বপ্ন হচ্ছে জীবন বাস্তবতা থেকে উদ্ভূত গোপন অভিলাষের প্রতীকী প্রকাশ। যে অভিলাষ আমরা অবচেতনে ভাবি, ঘুমের মধ্যে দেখা পাই।

তাঁর স্বপ্নের ব্যাখ্যাটি আমার কাছে তেমন জটিল মনে হয় না। আমি তাঁকে বলি যে, "আসলে আমরা সকলেই এক সময় জলের ভেতরে ঘুমিয়েছি, মাতৃগর্ভে। আর মাতৃগর্ভ হচ্ছে মানব জাতির জন্য সবচেয়ে নিরাপদ ও দুশ্চিন্তাহীন বেড়ে ওঠার জায়গা। আপনার স্বপ্নের বার্তা হচ্ছে, দুশ্চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করতে হবে।"

জীবনের সংকট থেকে আমরা যখন মুক্তি চাই, নিরাপদ শান্তির আশ্রয় চাই, মাতৃগর্ভের "জলের পুকুরে ঘুমানোর" প্রতীক কি সেই প্রত্যাশার অন্যতম জায়গা নয়?

আমি যখন আমার মায়ের কথা ভাবি, এই বন্ধুর স্বপ্নের কথা আমার মনে পড়ে। আমার মায়ের শরীরের ভেতরে সেই বিশাল পুকুরের জীবন আমার স্মৃতিতে নেই, কিন্তু আমি তা মনে মনে বিনির্মাণ করার চেষ্টা করি। আমাদের এই পৃথিবীর জীবনের শুরুতে আমরা প্রত্যেকেই একজন নারীর শরীরের ভেতরে আরেকটি জলমগ্ন পৃথিবীতে নিশ্চিন্ত নিরাপদে ছিলাম।

নারীর সক্ষমতা নিয়ে ভাবলে, আমি এই জলের আশ্রয়ের রূপকল্পটি দেখতে পাই; নারী যিনি নিরাপদ নিরাপত্তা দেয়ায় সক্ষম একজন অসীম ক্ষমতাধর মানুষ। পরজন্মে বিশ্বাস নেই, থাকলে আমি একজন নারী হিসেবে জন্ম নিতে চাইতাম। নিজের শরীরে একটি গোটা পৃথিবী বহন করার অভিজ্ঞতার জন্য।

আজকে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে, আপনাদের অবদান নিয়ে বিস্ময়ে ও কৃতজ্ঞচিত্তে ভালোবাসা জানাই। ধন্যবাদ সেই সব সচেতন পুরুষদেরও, যারা নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে, নারীমুক্তি সংগ্রামের সহযোদ্ধা।


  • ১৯৮ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

খান আসাদ

সমাজকর্মী

ফেসবুকে আমরা