দুই জামাতাকে নবী স্বয়ং নারী বাছাই করে দিয়েছিলেন

মঙ্গলবার, মার্চ ২০, ২০১৮ ৬:০০ PM | বিভাগ : মুক্তচিন্তা


টাইম মেশিনে চড়ে যদি ১৪০০ বছর পিছনে জিহাদের ময়দানে আজকের যুগের কোনো মুসলমানকে নিয়ে যাওয়া যেতো তাহলে নির্ঘাৎ সে প্রফেট আর তার সাহাবীদেরকেই মুসলমান বলে স্বীকার করতো না! আজন্ম জেনে আসা ইসলামের বিপরীত যখন সে দেখতো মুসলমানরা কাফেরদের উপর হামলা চালিয়ে তাদের ধনসম্পদ ও তাদের স্ত্রী কন্যাদের দখল করে নিচ্ছে এবং বন্দি পুরুষদের চোখের সামনেই তাদের স্ত্রী কন্যাদের সঙ্গে সঙ্গম করছে- সে বিশ্বাসই করতে পারতো না এসব ইসলামে সম্পূর্ণ হালাল এবং আল্লার আইন!

কি বিশ্বাস হচ্ছে না তো? সুরা নিসার ২৪ নাম্বার আয়াতটা কেনো নাযিল হয়েছিলো তাহলে সেটা সবার আগে জেনে নিন। আওতাস গোত্রের বিরুদ্ধে জিহাদে গিয়ে বেশ কিছু নারীদের মুসলমানরা গণিমত হিসেবে লাভ করে। কিছু সাহাবী সেই নারীদের সঙ্গে সহবাস করতে দ্বিধাগ্রস্থ হলেন কারণ সেই নারীদের কাফের স্বামীরা ছিলো তখনো জীবিত। এ কথা মুহাম্মদ জানার পর আয়াত নাযিল হয় সুরা নিসার ২৪ নম্বর আয়াত “এবং বিবাহিত নারীগণ তোমাদের জন্যে অবৈধ, তবে যারা তোমাদের দক্ষিণ হস্তের অধিকারে আছে তাদের ছাড়া” (সহি মুসলিম, বুক নং-৮, হাদিস নং-৩৪৩২)।

মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের লিসান্স শাইখ মুহাঃ আব্দুল্লাহ আল কাফী এই বিষয়ে স্পষ্ট করে বলেছেন, ‘স্ত্রীদের সাথে যৌন সহবাস যেমন বৈধ, অনুরূপ মালিকানাভুক্ত দাসীদের সাথেও। সকল বিদ্বান একমত যে বিনা বিবাহে, বিনা মোহরে ও স্বাক্ষ্যে দাসীদের সাথে সহবাসে লিপ্ত হওয়া তার মালিকদের জন্যে জায়েয। এতে কারো কোনো মতবিরোধ নেই’। শাইখ সাহেব নিজের মতামত এখানে চাপিয়ে দেন নি। তিনি সুরা মু’মিনূন’র বাইরে কিছু বলেন নি। সেখানে বলা আছে, ‘আর যারা তাদের (ব্যভিচার থেকে) যৌনাঙ্গকে সংযত রাখে। তবে তাদের স্ত্রী ও মালিকানাভুক্ত দাসীদের ক্ষেত্রে সংযত না রাখলে তারা তিরস্কৃত হবে না’ (সূরা মু’মিনূন, ৫-৬)।

সুরা নিসার ২৪ নম্বর আয়াতটা প্রথমে পুরো পড়ে নিন।- “নারীদের মধ্যে তোমাদের অধিকারভুক্ত দাসী [1] ব্যতীত সকল সধবা তোমাদের জন্য নিষিদ্ধ, তোমাদের জন্য এ হলো আল্লাহর বিধান। এবার এই আয়াতের হুবহু তাফসীরে আহসানুল বায়ান (অনুবাদঃ শায়েখ আব্দুল হামিদ ফাইজী) থেকে তুলে দিচ্ছি-

[1] কুরআন কারীমে إِحْصَانٌ শব্দটি চারটি অর্থে ব্যবহার হয়েছে। যথা, (ক) বিবাহ (খ) স্বাধীনতা (গ) সতীত্ব এবং (ঘ) ইসলাম। এই দিক দিয়ে مُحْصَنَات এর হবে চারটি অর্থঃ (ক) বিবাহিতা মহিলাগণ (খ) স্বাধীন মহিলাগণ (গ) সতী-সাধ্বী মহিলাগণ এবং (ঘ) মুসলিম মহিলাগণ।

এখানে প্রথম অর্থকে বুঝানো হয়েছে। আয়াতের শানে নুযুল (অবতীর্ণ হওয়ার কারণ) সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, যখন কোনো কোনো যুদ্ধে কাফেরদের মহিলারা মুসলিমদের হাতে বন্দিনী হলো, তখন ঐ সকল মহিলারা বিবাহিতা হওয়ার কারণে মুসলিমরা তাদের সাথে সহবাস করার ব্যাপারে ঘৃণা অনুভব করলো। অতঃপর নবী করীম (সাঃ)-কে সাহাবায়ে কেরাম (রাঃ)-গণ এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে এই আয়াত অবতীর্ণ হলো। (ইবনে কাসীর) এ থেকে জানা গেলো যে, যুদ্ধলব্ধ কাফের মহিলারা মুসলিমদের হাতে বন্দিনী হয়ে এলে, তাদের সাথে সহবাস করা জায়েয, যদিও তারা বিবাহিতা হয়। তবে গর্ভমুক্ত কি না সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া জরুরি। অর্থাৎ, এক মাসিক দেখার পর অথবা গর্ভবতী হলে প্রসবের পর (নিফাস বন্ধ হলে তবেই) তার সাথে সহবাস করা যাবে।

কাফের বা অমুসলমান নারীদের যৌনদাসী বানানো যে ইসলামী রীতি এই হাদিসটি পড়লে সেকথা পরিস্কার হওয়া যায়- আবু সাইদ আল খুদরি বলেন – “হুনায়েন যুদ্ধের সময় আল্লাহর রাসুল (দ:) আওতাসে এক অভিযান পাঠান। তাদের সাথে শত্রুদের মোকাবেলা হলো এবং যুদ্ধ হলো। তারা তাদের পরাজিত করলো এবং বন্দী করলো। রাসুলুল্লাহর (দ:) কয়েকজন অনুচর বন্দিনীদের স্বামীদের সামনে তাদের সাথে যৌনসঙ্গম করতে অপছন্দ করলেন। তারা (স্বামীরা) ছিলো অবিশ্বাসী কাফের)। সুতরাং মহান আল্লাহ কোরাণের আয়াত নাজেল করলেন – “সমস্ত বিবাহিত স্ত্রীগণ (তোমাদের জন্যে অবৈধ); কিন্তু তোমাদের দক্ষিণ হস্ত যাদের অধিকারী (যুদ্ধবন্দিনী), আল্লাহ তোমাদের জন্যে তাদেরকে বৈধ করেছেন”। (সুনান আবু দাউদ, বুক নং-১১, হাদিস নং-২১৫০)।

একদম পরিস্কার ব্যাপার স্যাপার। অমুসলিম নারীরা মুসলিম যোদ্ধাদের জন্য হালাল। এর জন্য কি মুসলিম পুরুষরা তাদের বিয়ে করে নিয়েছিলো? মোটেই না। যুদ্ধে জিতেই গণিমত হাতিয়ে নেয়ার জন্য তারা পাগল হয়ে উঠলো। ক্ষুধার্ত্ব পশুর মতো ঝাপিয়ে পড়তো বিজিত নারীদের উপর।

বিষয়টা এতখানিই ভাইরাল হয়ে উঠেছিলো যে স্বয়ং মুহাম্মদ ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন। তিনি বুঝতে পারলেন, এদের এখনি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে পরে সমূহ বিপদ। কিন্তু গণিমত নিষিদ্ধ করলে যে তার দলে কেউ জিহাদে যোগ দিতে আসবে না সেটা তিনি বিলক্ষণ জানতেন। তাই উভয় কুলই রক্ষা করলেন তিনি। নিয়ম করে দিলেন, শত্রু দলের নারীদের মাসিক নিশ্চিত হবার পরই কেবল তাদেরকে মুসলমান যোদ্ধারা ভোগ করতে পারবে। অর্থ্যাৎ সেই নারীরা তাদের স্বামীদের হাতে গর্ভবতী কিনা সেটা আগে নিশ্চিত হতে হবে। একইভাবে মুহাম্মদ গণিমত তিনি ভাগভাটোয়ারা করার আগে কেউ তাতে হাত দেয়াও নিষিদ্ধ করলেন।

এখনো কিছু বিশ্বাস হচ্ছে না? মানতে পারছেন না কিছুতে? যুদ্ধবন্দিনী নারীকে বিয়ে ছাড়াই সঙ্গম করা ইসলামে এতখানিই স্বাভাবিক যে প্রফেট মুহাম্মদ তার জামাতা হযরত আলীকে নিজে বাছাই করে একজন নারীকে ভোগ করতে দিলেন। এতে ঈর্ষান্বিত হয়েছিলো একজন সাহাবী। মুহাম্মদ সেই সাহাবীকে ডেকে বললেন, আলীকে হিংসা করো না, আলীর এরচেয়ে আরো বেশিই প্রাপ্য…। কষ্ট করে হাদিসটি পাঠ করুন-

বুরাইদা কতৃক বর্ণিত, নবী আলীকে ‘খুমুস’ আনতে খালিদের নিকট পাঠালেন (যুদ্ধলব্ধ মালের নাম খুমুস)। আলীর উপর আমার খুব হিংসা হচ্ছিলো, সে (খুমুসের ভাগ হিসেবে প্রাপ্ত একজন যুদ্ধবন্দিনীর সাথে যৌনসঙ্গমের পর) গোসল সেরে নিয়েছে। আমি খালিদকে বললাম, “তুমি এসব দেখো না”? নবীর কাছে পৌঁছলে বিষয়টি আমি তাকে জানালাম। তিনি বললেন, “বুরাইদা, আলীর উপর কি তোমার হিংসা হচ্ছে”? আমি বললাম – “হ্যাঁ, হচ্ছে”। তিনি বললেন, “তুমি অহেতুক ঈর্ষা করছো, কারণ খুমুসের যেটুকু ভাগ সে পেয়েছে তার চেয়ে আরও বেশী পাওয়ার যোগ্য সে” (সহি বুখারি, ভলিউম-৫, বুক নং-৫৯, হাদিস নং-৬৩৭)।

এখানেই শেষ নয় হযরত উমার তার ভাগে পড়া কাফের মেয়েটিকে তার প্রিয় পুত্র আবদুল্লাহকে দিয়ে দিয়েছিলেন! নবী জীবনীকার ইবনে ইসহাক বর্ণনা করেছেন, বানু হাওয়াজিন গোত্রকে পরাজিত করে ছয় হাজার নারী ও শিশুকে আটক করেছিলো মুসলমানরা। সেই আক্রমণের সময়ই উমারের ভাগ্যে জোটা সুন্দরী নারীটিকে উমার তার পুত্রকে দিয়ে দিয়েছিলেন। এখানে লজ্জাটজ্জার কোনো বলাই নেই।

আলী ও উসমান- এই দুই জামাতাকে নবী স্বয়ং নারী বাছাই করে দিয়েছিলেন। এসব দেখে শুনে কি মনে হয় উনারা মুসলমান ছিলেন? মানে আমাদের আজন্ম জানা ইসলামের আদলে কি তাদেরকে মনে হয় তারা ইসলাম সম্মত ছিলেন? যেমনটা আজকে আইএসকে দেখে আপনাদের সন্দেহ জাগে!

এখন কি ‘এসব সে যুগের যুদ্ধের নিয়ম ছিলো’ বলে পার পাওয়া যাবে? কুরআনের সুরা নিসার ২৪ নম্বর আয়াত তো রহিত করা হয় নি। তাই তাত্ত্বিকভাবে এই আয়াত আজো কার্যকর! আর এ কারণেই তালেবান, আইএসের মতো দলগুলো পৃথিবীকে মধ্যযুগের এক বর্বর আইনের আওতায় যুদ্ধবন্দিনীদের অবাধে ধর্ষণ করে যাচ্ছে যা জেনেভা কনভেনশনে অনুযায়ী মানবতার বিরুদ্ধে জঘন্য অপরাধ। ভুক্তভোগী নারীদের কাছে যতই আইএস সদস্যরা লম্পট লোভীই হোক- তারা তো নিসার ২৪ নম্বর আয়াত হতেই তৈরি হয়েছে। কেমন করে তাই তাদের অস্বীকার করবেন?


  • ৬৫৯ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

সুষুপ্ত পাঠক

বাংলা অন্তর্জালে পরিচিত "সুষুপ্ত পাঠক" একজন সমাজ সচেতন অনলাইন একটিভিস্ট ও ব্লগার।

ফেসবুকে আমরা