Defying online sexual violence - Lucky Akter

রবিবার, জুলাই ১৫, ২০১৮ ১২:০৪ PM | বিভাগ : English Articles


I have been undergoing unbridled personal attacks on the social network since yesterday. My facebook wall and inbox are inundated with hundreds and thousands of ugly remarks. But I am not worried at all at the personal level. Because such sort of attack is nothing new for me! I have resisted these kinds of things in past, still resisting and am mentally prepared enough to fight with these in future as well.

My well-wishers have been requesting me to close the public comment option in my facebook since the inception of the Shahbagh movement. I had to battle with different layers of my character assassination at that time. Even my cell number was uploaded on a number of porn sites. Thousands of phone calls used to come to me asking the same question :

“What is your rate?”

But I did not change my cell number even then. I just kept on doing my political duty and performing my social responsibilities in that hard time.

My observation under this present situation is that the activists in different social movements get harassed in a numerous way. And if the participant in the movement is a woman, then she gets stigmatized beyond description. Her character assassination becomes a vital weapon to repress the movement. A woman has to wage her war with double preparedness when she comes to play her role in different socio-political movements.

Today I must salute all those women leaders and activists who have been subjected to crazy humiliation and insult in the social network on a regular basis. I must congratulate them! Those who are doing this job of character assassination are just revealing their rapist mindset. They are just throwing off their masks themselves. We have nothing to get puzzled in it. Thousands of women must fight with this patriarchal violence in streets and on the social network. How can we free ourselves from such personal attacks?

The answer is: Fight!

গতকাল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমাকে মুহুর্মুহু ব্যক্তিগত আক্রমণ করা হচ্ছে। ফেসবুকের দেয়াল আর ইনবক্স ভেসে যাচ্ছে কুৎসিত মন্তব্যে। ব্যক্তিগত ভাবে এ বিষয় নিয়ে আমি মোটেও উদ্বিগ্ন নই। কারণ এই আক্রমণ আমার জন্য নতুন কিছু নয়। অতীতেও আমি এইসব মোকাবিলা করেছি, এখনো করছি আর ভবিষ্যতেও মোকাবেলার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত আছি।

আমার শুভাকাঙ্ক্ষীরা শাহবাগ আন্দোলনের সময় থেকেই আমার কমেন্ট অপশন বন্ধ রাখার কথা বলছেন। সেসময় আমার চরিত্র হননের নানান পর্যায় আমাকে মোকাবেলা করতে হয়। এমনকি আমার ফোন নাম্বার গণহারে পর্ণ সাইটে আপলোড করা হয়েছিলো। হাজার হাজার ফোন কলের অপর প্রান্ত থেকে ভেসে এসেছিলো একটাই প্রশ্ন :

আপনার রেট কত?

সেসময়েও আমি আমার এই নাম্বার পরিবর্তন করি নি। শুধুমাত্র সেই বিরুদ্ধ পরিবেশ মোকাবেলা করে আমার রাজনৈতিক কর্তব্য এবং সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা পালন করে গেছি।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আমার পর্যালোচনা হচ্ছে আন্দোলন সংগ্রামে আন্দোলনকারীদের নানাভাবেই নাজেহাল করা হয়। আন্দোলনকারী যদি নারী হন তাহলে তো কথাই নেই। তার চরিত্র হনন করাটা একটা আন্দোলন দমানোর হাতিয়ার হয়। একজন নারী আন্দোলন সংগ্রাম করতে আসলে তাকে দ্বিগুণ প্রস্তুতি নিয়ে লড়াই করতে হয়।

আমিসহ যেসকল নারীরা প্রতিনিয়ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ধরণের উন্মত্ত আক্রমণের শিকার হয়েছেন তাদেরকে আমি অভিবাদন জানাই। এই সমাজ এবং রাষ্ট্রের ধর্ষকামী চরিত্র আক্রমণকারীরা নিজেরাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রমাণ দিচ্ছেন। তাদের খোলশ নিজেরাই উন্মুক্ত করছেন। এতে বিচলিত হওয়ার কিছু নেই। আরো হাজার হাজার নারীকে সামাজিক মাধ্যম আর রাজপথে থেকেই এর মোকাবেলা করতে হবে।

এই ধরণের ব্যক্তিগত আক্রমণ থেকে মুক্তির উপায় কী?
উত্তর: লড়াই!


  • ২৯৮ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

ফেসবুকে আমরা