আমি আমার বোনটিকে বাঁচাতে পারিনি

বুধবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৭ ১:২১ AM | বিভাগ : প্রতিক্রিয়া


আমি কি এইভাবেই মরে যাবো? মৃত্যুর আগে কি দেখতে পাবো না যে আমার বোন কল্পনা চাকমাকে যারা সেদিন তুলে নিয়ে গিয়েছিল ওদের বিচার হচ্ছে! গরীব ঘরের বোকা মেয়েটা নিজের আখের গোছানোর চেষ্টায় ছিলো না। হিল উইম্যান ফেডারেশনের নেতা হয়েছিলো। বোকা বলবো না? মেয়েটা ভেবেছিলো পাহাড়ের মেয়েদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করবে। বিশাল পাহাড়ের কোন কোনায় একটা গ্রামের ছোট একটা মেয়ে। না জানতো কিভাবে লিপস্টিক পরতে হয়। না জানতো কিভাবে ফ্যাশন করতে হয়।

এখন যেসব মেয়েরা কলেজে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ো, গুগল করে দেখো, কল্পনার ছবি দেখতে পাবে। দেখবে কি সাধারণ কাপড়চোপড় পরা মেয়েটা! এই মেয়েটা কিনা লড়তে গিয়েছিলো পাহাড়ের মেয়েদের হয়ে। মাথা নিচু করেনি। লড়াইয়ে ছিলো আমার বোন কল্পনা চাকমা।

তরুণ বন্ধুরা ডেকেছিলো খাওয়াবে বলে। খানা পিনা দিয়েছে বটে- মনে করিয়ে দিয়েছে কল্পনার কথা। ওদের মনে আছে কল্পনার শেষ কথাটা- 'দাদা মরে বাছা'- দাদা আমাকে বাঁচা। ঢাকা শহরটি অন্ধকারে ডুবে যায়। আমার কিসসু ভালো লাগে না। আমি এইসব দিয়ে কি করবো? আরামের ঘর, প্রেমময়ী স্ত্রী, শুভ্র মোটর গাড়ী, মসৃণ হুইস্কি আর বান্ধবীর তলপেটে পোরসোলিন ত্বক। এইসবে কি হবে আমার? আমি তো শালা নপুংসক কাপুরুষ নতজানু কুকুর। আমার বোনটি বলেছিলো 'দাদা মরে বাঁচা'। আমি কিছুই করতে পারিনি।

এইভাবেই মরে যাব? ঐ শয়তানগুলির কিছুই করতে পারবো না? আমার কল্পনা বলেছিলো দাদা মরে বাছা। আমি কিছুই করতে পারিনি। পারবো না?

তোমরা হারামির দল আমাকে রোম্যান্টিক কবিতা লিখতে বলো? এইটাই আমার কবিতা- দাদা আমাকে বাঁচা। তোমরা আমাকে দর্শন লিখতে বলো? এইটাই দর্শন, যা, শুনতে থাক। রাজনীতি? এইটাই আমার রাজনীতি। মেয়েটি সেদিন রাতে চিৎকার করে আমাকে বলেছিল, দাদা আমাকে বাঁচা। আমি স্বার্থপর ভীরু কাপুরুষ বেচে আছি, মেয়েটিকে বাঁচাতে পারিনি। যেদিন মৃত্যু হবে- সেটি হবে আমার কুক্কুরেরন্যায় ঘৃণ্য পরাজিত মৃত্যু। আমি আমার বোনটিকে বাঁচাতে পারিনি।

 


  • ১১২৬ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

ইমতিয়াজ মাহমুদ

এডভোকেট, মানবাধিকারকর্মী

ফেসবুকে আমরা